আহমদ ছফাকে নিয়ে ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া গল্পের প্রতিক্রিয়া

আহমদ ছফা‌কে নি‌য়ে ফেসবু‌কে ভাইরাল হওয়া গ‌ল্পের প্রতিক্রিয়া

আহমদ ছফাকে নিয়ে ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া গল্পের প্রতিক্রিয়া

:: নুরুল আনোয়ার :: গ্রামীণ একটা প্রবাদ আছে, “আধা সের চা‌লের পিঠা, যার কথা শু‌নি তার কথা মিঠা।” বর্তমা‌নে এমন…

খালিদীকে আ'লীগের প্রতিদান দুর্নীতির মামলা

খালিদীকে আ’লীগের প্রতিদান দুর্নীতির মামলা

:: এ কে এম ওয়াহিদুজ্জামান :: বাংলাদেশের সাংবাদিকদের স্বার্থ নিয়ে নরমে-গরমে দুইটা কথা বলতে ২০১৩ সালে গঠন করা হয় এডিটরস’…

চঞ্চল চৌধুরীর ইউনিলিভারের পিওর ইটের বিজ্ঞাপন প্রসঙ্গে

চঞ্চল চৌধুরীর ইউনিলিভারের পিওর ইটের বিজ্ঞাপন প্রসঙ্গে

:: মুজতবা খন্দকার :: চঞ্চল চৌধুরী বহুজাতিক বিজ্ঞাপনি সংস্থার হয়ে একটি বিজ্ঞাপনে হিন্দুস্থান ইউনিলিভারের পিওর ইটের বিজ্ঞাপনে অংশ নিয়ে ওয়াসার…

আ'লীগ প্রকাশ্যেই জামাতের সাথে মৈত্রী বন্ধনে আবদ্ধ হয়

আ’লীগ প্রকাশ্যেই জামাতের সাথে মৈত্রী বন্ধনে আবদ্ধ হয়

“… বুর্জোয়া রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে আওয়ামী লীগের সমর্থক বুদ্ধিজীবিদের সংখ্যাই সব থেকে বেশি। কিন্তু আশ্চর্যের ব্যাপার যে, ১৯৭০ সালের আগে…

তাজউদ্দিন স্বেচ্ছায় মন্ত্রীত্বত্যাগের সম্মান থেকে বঞ্চিত হলেন

তাজউদ্দিন স্বেচ্ছায় মন্ত্রীত্বত্যাগের সম্মান থেকে বঞ্চিত হলেন

“… ১৯৭৫ সালের জানুয়ারী মাসে আমি ঢাকায় বার্ষিক ছুটি কাটাতে গিয়েছিলাম। শাসনপদ্ধতির পরিবর্তন ও তাজউদ্দিন আহমদের পদত্যাগ সম্পর্কে তখন বিভিন্ন মহলে তুমুল আলোচনা অব্যাহত ছিল। তার পদত্যাগের কারণ জানার জন্য আমিও উন্মূখ ছিলাম। তৎকালীন পাইওনিয়ার প্রেসের মালিক আবদুল মোহাইমেন আমার সঙ্গে দেখা করতে আসেন। তিনি আওয়ামী লীগের নেতৃস্থানীয় কর্মী এবং তাজউদ্দিন সাহেবের একনিষ্ঠ সমর্থক ছিলেন। তার বক্তব্য শুনে মনে হয়েছিল, তাজউদ্দিন সাহেবের পদত্যাগের জন্য বঙ্গবন্ধু দায়ী বলে তিনি মনে করেন। আমি তার সাথে দ্বিমত প্রকাশ করে বললাম, ‘ইতিহাসের প্রয়োজনে প্রকৃত তথ্য জানা প্রয়োজন। তার বিরুদ্ধে যেসব গুজব ছড়ানো হচ্ছে, তার প্রতিবাদ হিসেবে একটি লিখিত বক্তব্য থাকা উচিত।’ মোহাইমেন সাহেব বললেন, ‘তা’ হলে তাঁকে (তাজউদ্দিনকে) মেরে ফেলবে।’ কথাটা আমার কাছে অবিশ্বাস্য মনে হয়েছিল। বঙ্গবন্ধু তার ঘনিষ্ঠ সহকর্মীকে হত্যার মাধ্যমে রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে সরিয়ে দেবেন, এ ধরণের কথা তিনি কী করে বলতে পারলেন, তা ভেবে আমি অবাক হয়েছিলাম। বঙ্গবন্ধুর শাসন আমলে গণভবনে যুগ্ম-সচিব পদে কর্মরত মনোয়ারুল ইসলাম লিখেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু দীর্ঘ নি:শাস ফেলে বললেন, তাজউদ্দিনের জন্য আমি কী না করেছি। কিন্তু তাজউদ্দিন ভুলে গেছে। এসব নিয়ে প্রতিটি আলোচনার সময়, প্রতিটি সিদ্ধান্ত নিয়ে তাজউদ্দিন আমার মতের বিরুদ্ধে কথা বলতো, মহা বিব্রতকর অবস্থা। আমার আর কোন পথ ছিল না।’ ( বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি ঘেরা দিনগুলি, বঙ্গবন্ধু স্মারক গ্রন্থ, দ্বিতীয় খন্ড, পৃ. ১২২০-১২২৪ ) তাঁর একটা দু:খ ছিলো এই যে, মুক্তিযুদ্ধের ‘ন মাসের কথা বঙ্গবন্ধু তার কাছে কোনোদিন…

খালেদা জিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকা উচিত শেখ হাসিনার

খালেদা জিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকা উচিত শেখ হাসিনার

:: মারুফ কামাল খান :: জাতীয়তাবাদী দল – বিএনপির প্রতি, বিশেষ করে বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকা উচিত শেখ…

জিয়ার নির্দেশে জানজুয়াসহ অফিসারদের মেরে ফেলা হয়

জিয়ার নির্দেশে জানজুয়াসহ অফিসারদের মেরে ফেলা হয়

“… এরপর তিনি একাই একটি গাড়ি নিয়ে ছুটে যান অফিসার কমান্ডিং জানজুয়ার বাড়ি। কলিং বেল টিপতেই ঘুম ভেঙ্গে উঠে আসেন…

১৫ই আগস্টের বিপ্লবের পর ভারতীয় প্রভুত্বের অবলুপ্তি ঘটে

১৫ই আগস্টের বিপ্লবের পর ভারতীয় প্রভুত্বের অবলুপ্তি ঘটে

“… যে মহান রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের অন্তে স্বাধীন বাংলাদেশের উদ্ভব হয়েছিল, তার প্রেরণার উৎস ও চালিকাশক্তিতে রাজনৈতিক আশা-আকাঙ্ক্ষার সঙ্গে উজ্জ্বলতর অর্থনৈতিক…

জাতির পিতা হয়েইতো বিপদে পড়েছি

জাতির পিতা হয়েইতো বিপদে পড়েছি

“… ১১ই জানুয়ারি (১৯৭২) টেলিফোন বাজিয়া উঠিল। রিসিভার তুলিয়া একটি পরিচিত কিন্তু অত্যন্ত অপ্রত্যাশিত কন্ঠস্বর শুনিতে পাইলাম। কন্ঠস্বরটি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ অস্থায়ী সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদের। কলেজ জীবন হইতে বন্ধূ। টেলিফোনে তাজউদ্দিন কুশলাদি জিজ্ঞাসার পর আমাকে বলেন, – “শেখ সাহেবকে প্রধানমন্ত্রী পদে আসীন করিবার সিদ্ধান্ত লইয়াছি এবং প্রস্তাবও করিয়াছি। কারণ তিনি যে কোন পদেই বহাল থাকুন না কেন, তাঁহার ইচ্ছা-অনিচ্ছাতেই রাষ্ট্রীয় প্রশাসন পরিচালিত হইবে। শেখ শাহেবের মানসিক গড়ন তুমিও জান, আমিও জানি। তিনি সর্বাত্মক নিয়ন্ত্রণে অভ্যস্থ্। অতএব ক্ষণিকের ভূল সিদ্ধান্তের জন্য পার্লামেন্টারী কেবিনেট পদ্ধতির প্রশাসন প্রহসনে পরিণত হইবে। তিনি প্রেসিডেন্ট পদে আসীন থাকিলে নিয়মান্ত্রিক নাম-মাত্র দায়িত্ব পালন না করিয়া মনের অজান্তে কার্যতঃ ইহাকে প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির প্রশাসনে পরিণত করিবেন। এই দিকে প্রেসিডেন্ট পদে বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীকে নির্বাচনের কথা ভাবিতেছি। তোমার মত কি?” তদুত্তরে তাঁহাকে বলি, – “তোমার সিদ্ধান্ত সঠিক। নামমাত্র প্রেসিডেন্টের ভূমিকা পালন শেখ সাহেবের শুধু চরিত্র বিরুদ্ধ হইবে না, বরং উহা হইবে অভিনয় বিশেষ। কেননা, ক্ষমতার লোভ তাঁহার সহজাত।” তাজউদ্দিন টেলিফোনের অপর প্রান্তে সশব্দে হাসিয়া উঠিলেন। বলিলেন, – “আমি জানিতাম, মৌলিক প্রশ্নে তোমার আমার মধ্যে মতভেদ হইবে না॥”  – অলি আহাদ / জাতীয় রাজনীতি : ১৯৪৫ থেকে ৭৫॥ [ কো–অপারেটিভবুকসোসাইটি (পঞ্চমসংস্করণ) – অক্টোবর, ২০১২।পৃ: ৪৩৮–৪৩৯ ] … আমি তাকে বলেছিলাম, কোথায় কোথায় আমাদের কাকে কাকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি রেগে বললেন, ‘শুধু তোদের লোক মরছে, আমার লোককে মারছে না?’  আমি বললাম, ‘আমার লোক আর আপনার লোক এভাবে বলছেন কেন?  আপনি না জাতির পিতা?  সবাই তো  আপনার লোক।’ শেখ মুজিবুর রহমান একটু আক্ষেপের সুরে বলেছিলেন,…